ডিজিটাল বাংলাদেশের সঙ্গী

বাংলা কী বোর্ড ও সফটওয়্যার

নির্দেশিকা

বিজয় কীবোর্ড তৈরি করা হয়েছে এমনভাবে যাতে সহজেই সকল বাংলা অক্ষর তৈরি করা যায়। বিভিন্ন অপশনে বিজয় কীবোর্ড ব্যবহার করার জন্য বিভিন্ন কীবোর্ড কমান্ড ব্যবহার করতে হয়। বিজয় বায়ান্নো চালু হবার পর এর ডিফল্ট কীবোর্ড থাকে ইংরেজি। যখনই উইন্ডোজ সংস্করণে ইংরেজি থেকে বাংলা বা অসমিয়া টাইপ করতে হয় তখন কীবোর্ড কমান্ড দিয়ে বদল করতে হয়। যেমন ইংরেজি থেকে ক্লাসিক বিজয় এর জন্য কন্ট্রোল অলটার বি, ইংরেজি থেকে ইউনিকোড বিজয়-এর জন্য কন্ট্রোল অলটার ভি ব্যবহার করতে হয়। বিজয়-এর পূর্ববর্তী কোন কোন সংস্করণের মতোই বিজয় বায়ান্নো ২০১২-এ মাউস ক্লিক দিয়ে কীবোর্ড বদল করা যায়।

বিজয় কনভার্টার ব্যবহার

বিজয় বায়ান্নো ২০১২ সফটওয়্যারের সাথে একটি কনভার্টার ইন্সটল হবে। সেটি হলো বিজয় ২০০৩ থেকে বিজয় ক্লাসিক। আপনি বিজয় বায়ান্নো ২০১২ ইন্সটল করলে মাইক্রোসফ্‌ট ওয়ার্ড-এ একটি নতুন মেনু যোগ হবে যার নাম হবে বিজয় ক্লাসিক কনভার্টার। ওয়ার্ড ২০০৭-এর এড ইনস মেনুতে এটি পাওয়া যাবে। সেখানে ক্লিক করলে আপনি কনভার্টারটি পাবেন।
ডকুমেন্ট কনভার্ট করার জন্য আপনি ওয়ার্ডে (২০০৩ বা ২০০৭) সেই ডকুমেন্টটি খুলবেন। ঐ সময়ে অন্য কোন ওয়ার্ড ডকুমেন্ট খুলবেন না বা খোলা রাখবেন না। এরপর আপনি মেনু থেকে আপনার পছন্দমতো কনভার্টারটি বাছাই করবেন। লক্ষ্য করবেন, কমান্ড দেবার পর মুহূর্তের মাঝেই আপনি অপারেশন কমপ্লিট নামের একটি সংলাপ ঘর পাবেন। এর অর্থ দাঁড়াবে যে কনভার্টার আপনার ডকুমেন্ট কনভার্ট করে ফেলেছে। একটু বড় ডকুমেন্ট হলে সময় একটু বেশী লাগতে পারে। এবার আপনি সেই সংলাপ ঘরে ওকে করলেই আপনার সামনে কনভার্ট করা ডকুমেন্টটি প্রকাশিত হবে।

বিজয় কীবোর্ড-এ টাইপ করার সহজ নিয়মাবলী

১. কম্পিউটারে কীবোর্ড ব্যবহার করার জন্য সাধারণত দুটি হাতের দশটি আঙ্গুলই ব্যবহার করা হয়। প্রথমে ইংরেজি টাইপ করার নিয়ম অনুযায়ী দুই হাতের আঙ্গুলগুলি যথাস্থানে রাখতে হবে। মনে রাখা ভালো, বাম হাতের আঙ্গুলগুলিতে প্রধানত স্বরচিহ্নগুলো (দুটি স্বরবর্ণসহ) থাকবে। ডান হাতের আঙ্গুলগুলোতে থাকবে ব্যঞ্জনবর্ণগুলো।
২. বিজয় কীবোর্ডে যেখানে সম্ভব অল্পপ্রাণ ও মহাপ্রাণ জোড়া হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। যেমন- অ-া, -িী, -ে,ৈ ও-ৗ, ক-খ, গ-ঘ, চ-ছ, জ-ঝ, ট-ঠ, ড-ঢ, ত-থ, দ-ধ, প-ফ, বভ, ড়-ঢ়। এসব বর্ণের বিন্যাস হলো এমন যে, অল্পপ্রাণ অক্ষরগুলো স্বাভাবিক অবস্থায় ও মহাপ্রাণ অক্ষরগুলো শিফট অবস্থায় থাকবে। অবশ্য কোন কোন ক্ষেত্রে (যেমন ণ-ন, ষ-স) ব্যতিক্রমও আছে। এছাড়া ৃর্-, অ-া, ্র-্য, র-ল, ম-শ, ইত্যাদি জোড়াগুলোও একই বোতামে স্বাভাবিক ও শিফট অবস্থায় রয়েছে।
৩। ইংরেজি জি বোতামটিকে রূপান্তর বোতাম হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। এই বোতামটির সাহায্যে স্বরচিহ্নকে স্বরবর্ণে এবং ব্যঞ্জনবর্ণকে যুক্তাক্ষরে রূপান্তর করা যায়।

বিজয় বায়ান্নো ২০১২ ইন্সটল করা

বিজয় বায়ান্নো ২০১২ ব্যবহার করার জন্য উইন্ডোজ এক্সপি, উইন্ডোজ ভিস্তা বা উইন্ডোজ সেভেন অপারেটিং সিস্টেম প্রয়োজন হবে। এটি এর আগের কোন অপারেটিং সিস্টেমে কাজ করে না। অর্থাৎ এটি উইন্ডোজ ৩.১, ৯৫, ৯৮, এমই তে কাজ করবে না। এমনকি উইন্ডোজ এনটি ৪.০ এবং ২০০০-এ ইউনিকোড সঠিকভাবে কাজ করবে না।
আপনি যদি কম্পিউটারের পুরানো ব্যবহারকারী হন তবে আপনি আপনার কম্পিউটার থেকে বিদ্যমান কোন বাংলা সফটওয়্যার থাকলে তা প্রথমেই আনইন্সটল বা রিমুভ করুন। ফন্টগুলো ডিলিট হলো কিনা সেটি নিশ্চিত করুন। পুরানো ফন্ট থাকলে আপনি অহেতুক অবাঞ্ছিত সমস্যায় পড়তে পারেন। সেজন্য ফন্ট ফোল্ডারে গিয়ে নামের শেষে এমজে আছে এমন ফন্ট বাছাই করে ডিলিট করুন।
এবার আপনি আপনার কম্পিউটারের সিডি ড্রাইভে বিজয়-এর সিডিটি প্রবেশ করান। আপনার সামনে একটি ইন্সটলারের সংলাপ ঘর আসবে। ওখান থেকে আপনি বিজয় বায়ান্নো ২০১২ অপশনটি বাছাই করুন। এরপর আপনি একাধিক লাইসেন্সে সম্মতি প্রদান করুন এবং এটি কোথায় ইন্সটল করবেন তা চিহ্নিত করে নিজের জন্য শুধু, না সকলের জন্য ইন্সটল করছেন, সেটি নির্ধারণ করে দিন। যদি আপনি কোন পরিবর্তন নাও করেন তবুও এটি নিজে ডিফল্ট হিসেবে যা বাছাই করেছে সেই অনুসারে ইন্সটল হয়ে যাবে। তা এবার কম্পিউটারটি রিস্টার্ট করে নিন। এরপর আপনার সামনে একটি পর্দায় পাসওয়ার্ড দিতে বলা হবে। এবার আপনার সিডির ওপর থেকে পাসওয়ার্ডটি টাইপ করুন। এরপর সফটওয়্যারটি চালু হয়ে যাবে।

বিজয় বায়ান্নো ২০১২ আনইন্সটল/রিমুভ

বিজয় বায়ান্নো ২০১২ আনইন্সটল করার জন্য আপনি প্রোগ্রামস মেনু থেকে কন্ট্রোল প্যানেল বাছাই করুন। সেখান থেকে এ্যাড অর রিমুভ প্রোগ্রামস-এ ক্লিক করুন। সেখান থেকে বিজয় বায়ান্নো বাছাই করুন। ডানপাশে রিমুভ বোতামে ক্লিক করুন। এতে আপনার কম্পিউটারে বিজয় বায়ান্নো ২০১২ সফটওয়্যার আনইন্সটল হবে।